কায়সার ও কিসরা

আপনার প্রথম পছন্দের সাথে আমার পছন্দ মিলে গেছে।

আমার কাছে ‘কায়সার ও কিসরা’র ফিলোসফিক্যাল আসপেক্টটা অসাধারণ লেগেছে। আরবের এক তরুণ জীবনের চূড়ান্ত সত্যের খোঁজে দুনিয়া চষে বেড়াচ্ছে। বিশ্বের প্রধান দুই পরাশক্তির দুয়ারে দুয়ারে মাথা ঠুকরে মরছে। যেই সত্যের খোঁজে ভাগ্যের ফেরে পড়ে তাকে জন্মভূমি ছাড়তে হয়েছিলো, কিছুদিন পর সেই মদীনাতেই আকাঙ্খিত মহাসত্যটি উদ্ভাসিত হয়েছে। কিন্তু ততদিনে কুদরত তাকে ভাসিয়ে নিয়ে গেছে দূরে, বহুদূরে। অনিশ্চিত গন্তব্যে। পরিহাস আর কাকে বলে!

বেলা শেষে কুদরত যখন তাকে নিজ জন্মভূমিতে ফিরিয়ে এনেছে, তখন সেই মহাসত্যের সন্ধান সে পেলো বটে, কিন্তু সেই সত্যের বার্তাবাহক ততদিনে বিদায় নিয়েছেন। হায় জিন্দেগী!

সত্যকে পাওয়ার জন্য একজন আসেমের জীবনভর সংগ্রামের প্রতিটি চিহ্ন উপন্যাসের পাতায় পাতায় লেখক যতটা সুনিপুণভাবে তুলে এনেছেন, তা অতুলনীয়।

সত্যকে পাবার ব্যাকুলতা, জীবন ও জগতের চূড়ান্ত প্রশ্নগুলোর জবাব পাওয়ার সাধনা, জেল-জুলুম, অপমান-ভালোবাসা-প্রেম – সব মিলিয়ে আসেম নামে যে চরিত্রটি গড়ে উঠেছে, ইনসানিয়াতের এরচেয়ে সুন্দরতম প্রকাশ আর কী হতে পারে!

[গতকাল একজনের ফেসবুক পোস্টে করা আমার মন্তব্য]

ফেসবুক লিংক

আপনার মন্তব্য লিখুন

ইমেইল এড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত ঘরগুলো পূরণ করা আবশ্যক।